0

ডিজিটাল মার্কেটিং কি? বর্তমানে ডিজিটাল মার্কেটিং এর চাহিদা

মনে রাখবেন, ব্যবসায় সাফল্য পেতে হলে অবশ্যই আপনাকে সঠিক উপায়ে আপনার ব্যবসার প্রচার ও প্রচারণা করতে হবে। কথাই আছে- ব্যবসার প্রচারেই প্রসার। বর্তমানে ব্যবসা টিকিয়ে রাখতে হলে - ডিজিটাল মার্কেটিং এর বিকল্প নেই।  ডিজিটাল মার্কেটিং এর গুরুত্ব নিয়ে বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক।


ডিজিটাল মার্কেটিং কি?

ডিজিটাল মার্কেটিং হচ্ছে যোগাযোগ মাধ্যমের সকল প্রকার আধুনিক প্রযুক্তি, সোশ্যাল মিডিয়া, বিশেষ করে ইন্টারনেট ব্যবহার করে যে কোন পণ্য বা যে কোন সেবার প্রচারনা চালানো। বর্তমানে যে কোন ধরনের সেবা প্রদান কিংবা নতুন কিছু করার জন্য চাই প্রচারনা। কোন অনুষ্ঠান বা প্রতিযোগিতার প্রচারনা অথবা নিরবাহি প্রচারনা। ডিজিটালাইজেশনের যুগে এই ধরনের প্রচারনার মাধ্যমে আপনার ব্যবসাকে ডিজিটাল করে তুলন। 


ডিজিটাল মার্কেটিং কত প্রকার ও কি কি?

বর্তমানে ডিজিটাল মার্কেটিং এর বাস্তবিক পরিসর অনেক বড়। ডিজিটাল মার্কেটিং সেক্টরে নিজেকে দক্ষ করতে হলে নিদিষ্ট কিছু ক্ষেত্রে দক্ষতা অর্জন করতে হবে।


ডিজিটাল মার্কেটিং এর পরিসর বড় হওয়ার কারনে - ডিজিটাল মার্কেটিং অনেক গুলো প্রকারভেদ রয়েছে। 

১। এসইও

২। অনলাইন বিজ্ঞাপন

৩। কন্টেন্ট মার্কেটিং

৪। ইমেইল মার্কেটিং

৫। অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং

৬। সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং 


এসইও( সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন ) কি?

এসইও হচ্ছে এমন একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে সার্চ ইঞ্জিন গুলোতে - যেমন গুগল, ইয়াহু ইত্যাদি, ১০ টি সার্চ অফশনের মধ্যে আপনার ওয়েবসাইট শো করবে। ডিজিটাল মার্কেটিং মূল ভিত্তি হচ্ছে এসইও। 


এসইও দুই প্রকার - 

১। অন পেজ এসইও

২। অফ পেজ এসইও


অনলাইন বিজ্ঞাপন কি?

আমরা প্রতিনিয়ত বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া গুলোতে বিভিন্ন কোম্পানির পণ্যের অ্যাড বা শর্ট ভিডিও গুলো দেখতে পাই। এগুলো হচ্ছে অনলাইন বিজ্ঞাপন। কোম্পানি বা ব্যবসার প্রচারণার লক্ষ্যে বিভিন্ন ওয়েবসাইটে বা সোশ্যাল মিডিয়াতে  অ্যাড/ অ্যাডভার্টাইজমেন্ট করার মাধ্যমে অনলাইন বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়ে থাকে। 


 কন্টেন্ট মার্কেটিং কি?

ব্যবসার প্রচারণার লক্ষ্যে প্রপার কন্টেন্ট খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। ডিজিটাল মার্কেটিং এর কার্যকারী মার্কেটিং হচ্ছে কন্টেন্ট মার্কেটিং। কন্টেন্ট মার্কেটিং হচ্ছে ব্লগ পোস্ট, ইমেজ, ইনফোগ্রাফিক, ভিডিও ইত্যাদি ।  এসইও এর ক্ষেত্রে কন্টেন্ট রাইটিং খুবই গুরুত্বপূর্ণ ।  ওয়েবসাইট কে রাঙ্ক এ আনতে হলে অবশ্যই এসইও ফ্রেন্ডলি কন্টেন্ট আবশ্যক। শুধু কি! কন্টেন্ট ওয়েবসাইটের জন্য প্রয়োজন হয়? আসলে না, এসইও ফ্রেন্ডলি কন্টেন্ট বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়াতে ও কার্যকারী ভূমিকা পালন করে। 

এই কোর্সের মাধ্যমে কন্টেন্ট মার্কেটিং এর গুরুত্ব কন্টেন্ট মার্কেটিং কি, কন্টেন্ট মার্কেটিং কত প্রকার, কন্টেন্ট মার্কেটিং এর strategy কয়টি, ডিজিটাল মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে কন্টেন্ট গুরুত্ব, কন্টেন্ট ক্রিয়েটর ইতাদির মাধ্যমে বিস্তারিত আলোচনা পাচ্ছেন। 


ইমেইল মার্কেটিং কি?

ইমেইল মার্কেটিং হচ্ছে ডিজিটাল মার্কেটিং এর জনপ্রিয় মার্কেটিং প্রসেস। ইমেইল মার্কেটিং এর ফলে কম খরচে এবং অল্প সময়ে আপনি আপনার পর্ণের বিজ্ঞাপন করা যাই। বর্তমানে ইমেইল মার্কেটিং এর মাধ্যমে সব চেয়ে বেশি গ্রাহক তৈরি করা যায়। এমনকি আপনার পন্নের প্রচারনা বিদেশে ও করতে পারবেন খুব সহজে। 


এই কোর্সের মাধ্যমে ই মেইল মার্কেটিং কি, ইমেইল মার্কেটিং করে আয়, ইমেইল মার্কেটিং টেমপ্লেট ডিজাইন,ইমেইল মার্কেটিং টুলস, কিভাবে ইমেইল মার্কেটিং করবেন, ই- কমার্স বিজনেস ইমেইল মার্কেটিং এর গুরুত্ব ইতাদির মাধ্যমে বিস্তারিত আলোচনা পাচ্ছেন। 


অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কি?

কর্ম - দক্ষতাভিত্তিক মার্কেটিং প্রসেস হচ্ছে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং। এই প্রক্রিয়াতে এক বা একাধিক  মার্কেটার রা একটি নিদিষ্ট কোম্পানির বা ব্যবসা - প্রতিষ্ঠানের সাথে যুক্ত হয়ে গ্রাহক বা ক্রেতা জোগাড় করা। এই কাজের বিনিময়ে মার্কেটাররা কম্পানি হতে অর্থ পেয়ে থাকেন। 


অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর প্রধানত ৪ টি মূল ভিত্তি রয়েছে - 

১। অ্যাফিলিয়েট নেটওয়ার্ক 

২। ব্যবসায়ীগন 

৩। প্রচারকারী 

৪। এবং সর্বশেষ গ্রাহক


সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কি?

সর্বশেষ ও ডিজিটাল মার্কেটিং ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ  মার্কেটিং হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং। অনলাইন ভিত্তিক সোশ্যাল ব্যবসাকে এগিয়ে নিতে হলে অবশ্যই সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর ভূমিকা অপরিসীম। 

কোন পণ্য বা কোম্পানির প্রচারের লক্ষে সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফরম ব্যবহার করাই হচ্ছে ডিজিটাল মার্কেটিং। আর সোশ্যাল মিডিয়া বলতে Facebook, Instagram, Twitter, LinkedIn, Pinterest, YouTube,Tiktok, Snapchat.   এছাড়াও আরো অনেকগুলো সোশ্যাল মিডিয়া রয়েছে। আর এই সোশ্যাল মিডিয়া গুলোতে মার্কেটিং ক্যাম্পেইন করাটাই হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং। 


ডিজিটাল মার্কেটিং এর সুবিধা - 


১। ঘরে বসে ডিজিটাল মার্কেটিং এর মাধ্যমে বিজনেস প্রচালনা ক্রয়া যায়।

২। খুব সহজে মার্কেট রিসার্চ করে পণ্য ক্রয় - বিক্রয় করা যায়। 

৩। ঘরে বসেই কাস্টমারের কাছে পণ্য সম্পর্কে জানানো যায়।

৪। টার্গেট কাস্টমার বের করা যায় এবং প্রোডাক্ট সেল করা যায়।

৫। অল্প খরচে পণ্যর মার্কেটিং করা যায়।

৬।ব্যবসার গতিবিধি খুব সহজে বুঝা যাজায়।জ

৭।কম খরচে অধিক মুনাফা অর্জন করা যায়।

৮।খুব সহজে ডিজিটাল মার্কেটিং পদ্ধতি অবলম্বন করে বিদেশি ক্লায়েন্ট পাওয়া যায়।


পরিশেষে বলা যায়- বর্তমান জীবনে ডিজিটাল মার্কেটিং এর গুরুত্ব অপরিসীম। নিজের দক্ষ অথবা ব্যবসায় সাফল্য পেতে হলে অবশ্যই আপনাকে ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে হবে। 


You may also like....






You may also like:

- মোশন গ্রাফিক্স এ ক্যারিয়ার এবং ভবিষ্যৎ

- ইউ-আই ইউ এক্স কি এবং বর্তমানে ইউ-আই ইউ এক্স এর মার্কেটপ্লেস এর চাহিদা

- আপনার লিংকডইন প্রোফাইল যেভাবে প্রফেশনালি সাজাবেন

- কিভাবে হবেন একজন সফল ফ্রিল্যান্সার?

Shopping Cart

Loading...